লাইফস্টাইল

চাকরিতে প্রমোশন পেতে চাইলে যা যা করবেন!

  জাগোকন্ঠ ২৩ জুলাই ২০২২ , ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ

কখনো কি খেয়াল করেছেন যে আপনি যত কাজ করেন তার চেয়ে কম কাজ করেও কেউ কেউ অফিসে প্রমোশন পেয়ে যাচ্ছেন? কেন তারা আপনার চেয়ে বেশি যোগ্য বলে বিবেচিত হচ্ছেন তা কি কখনো ভেবে দেখেছেন? হয়তো তাদের পরিস্থিতি পরিচালনা করার দক্ষতা এবং আরও অনেক বিষয় আপনার চেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য। জেনে নিন কোন দিকগুলো থাকলে অফিসে আপনার প্রমোশন পাওয়া সহজ হবে-

সময়মতো প্রতিভা দেখানো

সব কর্মীরই আলাদা আলাদা ক্ষমতা, সামর্থ্য, প্রতিভা থাকে। নিজের প্রতিভা ও সামর্থ্যের সঙ্গে মিলিয়ে চাকরি বেছে নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। তাতে অন্তত মাছকে গাছে উঠতে বাধ্য করতে হয় না! এর বদলে তারা নিজেদের দক্ষতাকে ঝালাই করতে পারে। সিসেরো গ্রুপের ২০১৫ সালের একটি প্রতিবেদন অনুসারে, কর্মক্ষেত্রে স্বীকৃতি গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি কর্মীকে আরও উত্পাদনশীল করে তোলে। প্রতিবেদনটিতে অংশগ্রহণকারী উত্তরদাতাদের মধ্যে ৩৭% কর্মচারী বলেছেন যে, ম্যানেজার বা কোম্পানির স্বীকৃতি তাদের কর্মক্ষেত্রে এগিয়ে নিতে সাহায্য করেছিল, গবেষণা অনুসারে।

দুই দিকে ফোকাস

যারা প্রমোশন পান তারা প্রতিদিনের কাজ এবং বড় টার্গেটের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখেন। যারা চমৎকার পারফর্মার তারা তাদের প্রয়োজনীয় তথ্য সম্পর্কে আগেভাগেই জেনে নেয়। বিশেষ করে যদি তাদের একটি নির্দিষ্ট সেক্টর সম্পর্কে খুব বেশি জ্ঞান না থাকে। এতে তাদের নিজের কাজগুলো সম্পন্ন করা অনেকটাই সহজ হয়।

বসের কথা মেনে চলা

একজন বুদ্ধিমান কর্মী তার বস কী পছন্দ করে এবং তার লক্ষ্য কী তা বোঝার চেষ্টা করেন। তারা কাজ করার সময় অফিসের স্বার্থ মাথায় রাখেন। তারা এমন প্রকল্প এবং মিটিংয়ে অংশ যা তাদের আগ্রহের অংশ নাও হতে পারে কিন্তু বসের জন্য অগ্রাধিকার দেন। এছাড়াও তারা এমন প্রকল্প গ্রহণ করেন যা থেকে আরও তথ্য জানা যায়। বসের প্রকল্পের জন্য সহায়ক কাজগুলো তারা আগেভাগেই এগিয়ে রাখেন।

গসিপ না করা

সুপার পারফর্মাররা অফিস গসিপের বাইরে থাকে। এমনকী তার কাছে দাঁড়িয়ে গসিপ করলেও আপনি তার মুখ থেকে একটি শব্দও বের হতে শুনবেন না। এ ধরনের কর্মীরা তার অফিসে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে পড়লে কারও ঘাড়ে দোষ চাপান না। এ ধরনের তুচ্ছ বিষয়ে সময় নষ্ট করা তাদের পছন্দ নয়। তারা আসে, কঠোর পরিশ্রম করেন, দুপুরের খাবারের সময় মজা করেন, কাজ শেষ করেন এবং অফিস শেষে বাড়িতে বা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে চলে যান।

সবার সাথে বন্ধুত্ব করা

খুব কম মানুষই এমন বৈশিষ্ট ধারণ করতে পারে। একজন বুদ্ধিমান কর্মী অফিসের কারও সঙ্গে শত্রুতা করেন না, তিনি চান সবার সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ করতে। নিজে থেকে কোনো বিষয়ে রায় দিতে যাবেন না, যে বিষয়ে যার সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা, তাকে নিতে দিন। যদি কেউ আপনার সঙ্গে পরামর্শ করে তবে তখন তাকে সুপরামর্শ দিন। আপনার এসব স্বভাবই অফিসে প্রমোশনের ক্ষেত্রে সাহায্য করবে।