আন্তর্জাতিক

ভারতের গৌতম আদানির দৈনিক আয় ১৬১২ কোটি

  জাগো কণ্ঠ ডেস্ক ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ , ৩:০৮ পূর্বাহ্ণ

বিশ্বের ধনকুবেরদের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছেন ভারতীয় শিল্পপতি গৌতম আদানি। সম্প্রতি ভারতীয় একটি ম্যাগাজিনের তালিকা অনুযায়ী দেশটির শীর্ষতম ধনীও তিনি।

বুধবার প্রকাশিত হুরুন ইন্ডিয়া ২০২২ এর তথ্য অনুযায়ী, তিনি এক বছরে ৩ লাখ কোটি রুপির বেশি আয় করেছেন। গত বছর দিনে এক হাজার ৬১২ কোটি টাকা ‌আয় করেছেন আদানি। এভাবেই বেড়েছে তার সম্পদ।

ফোর্বসের তালিকা অনুযায়ী, বর্তমানে গৌতম আদানি বিশ্বের দ্বিতীয় ধনীতম ব্যক্তি। ভারতীয় এই ধনকুবেরের সামনে এখন কেবল ইলন মাস্ক রয়েছেন। সম্পদের দিক দিয়ে অ্যামাজন বস জেফ বেজোস এবং লুই ভিটনের বার্নার্ড আর্নল্টকেও ছাড়িয়ে গেছেন তিনি।

আদানির মোট সম্পদের মূল্য ১৫৬ দশমিক ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ভারতীয় মুদ্রায় যা প্রায় ১২ দশমিক ৪৪ লাখ কোটি রুপি। কিছু দিন আগেই এশিয়ার প্রথম নাগরিক হিসাবে ধনীতম ব্যক্তিদের তালিকায় তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছিলেন আদানি।

রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানির মোট সম্পদ আদানির তুলনায় অনেকটাই কম। বর্তমানে তার মোট সম্পদ ৯২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

জানা গেছে, সম্প্রতি ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম সিমেন্ট উৎপাদক প্রতিষ্ঠান এসিসি ও আম্বুজাকে অধিগ্রহণ করেছে আদানি গোষ্ঠী। এটিকেই এবার দেশের বৃহত্তম করার লক্ষ্য নিয়েছেন গৌতম আদানি।

গত শুক্রবার প্রকাশিত ফোর্বস রিয়েল টাইম বিলিয়নেয়ার তালিকায় অনুযায়ী, আগের তুলনায় আদানির সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় চার শতাংশ বেড়েছে। আদানির সম্পত্তি বৃদ্ধির পরিমাণ ৩.৪৮ শতাংশ।

সেই হিসাবেই অল্পের জন্য অ্যামাজনের মালিককে পেছনে ফেলেছেন আদানি। একইসঙ্গে এই তালিকায় আদানি টপকে গিয়েছেন লুই ভিটনের কর্ণধার বার্নার্ড আর্নল্টকেও। তবে আগের তালিকার মতোই এবারও শীর্ষস্থানে রয়েছেন টেসলা প্রধান ইলন মাস্ক। তার মোট সম্পদের পরিমাণ ২৭৩.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

সংবাদমাধ্যম বলছে, ২০২২ সালের প্রথম থেকেই লাগাতার ভাবে বেড়েছে আদানির সম্পত্তির পরিমাণ। ফেব্রুয়ারি মাসেই মুকেশ আম্বানিকে টপকে ভারতের ধনীতম ব্যক্তি হয়ে ওঠেন গৌতম আদানি। চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত আদানির সম্পত্তি বেড়েছে সাত হাজার কোটি মার্কিন ডলার।

এছাড়া ফোর্বস’র তালিকায় অষ্টম স্থানে রয়েছেন মুকেশ অম্বানি। তার সম্পদের পরিমাণ ৯২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

বছর কয়েক আগেও গৌতম আদানির নাম ভারতের বাইরে অনেকেই জানতেন না। কিন্তু ধীরে ধীরে নিজেকে প্রমাণ করেছেন তিনি। ধাপে ধাপে নিজের লক্ষ্যে এগিয়ে গেছেন।