জাতীয়

সদস্য রাষ্ট্রকে সহায়তা করা আইএমএফের দায়িত্ব : পরিকল্পনামন্ত্রী

  জাগোকন্ঠ ২৭ জুলাই ২০২২ , ৪:৪৩ অপরাহ্ণ

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) থেকে ঋণ নেওয়া নতুন কিছু নয়। অতীতেও নিয়েছি, আগামীতেও প্রয়োজন হলে নেব। আইএমএফ তৈরি হয়েছিল সদস্য রাষ্ট্রের সহায়তা করার জন্য। সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে নীতিগত অথবা অর্থগত উভয় দিক থেকে আইএমএফ সহায়তা দেবে। এটাই আইএমএফের দায়িত্ব।

বুধবার (২৭ জুলাই) সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট আয়োজিত ‘এফোর্ডএবল হাউজিং সেক্টর’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

এম এ মান্নান বলেন, আমরা মোটেও সংকটে নই। এটার রিপোর্ট আইএমএফের কাছেও আছে। আমি আজকেই পড়েছি আইএমএফ আমাদের সংকটের মধ্যে ফেলেনি। আইএমএফও জানে আমরা সংকটে নেই।

মন্ত্রী বলেন, পূর্বাভাস আকাশে কালো মেঘ ছিল। আর এটার জন্য আমাদের প্রধানমন্ত্রী অতি দ্রুত বেশ কয়েকটা পদক্ষেপ নিয়েছেন। আমার ধারণা, এটা উপকার দেওয়া শুরু করেছে। আমরা দাঁড়াবার জায়গা পেয়েছি। আরেকটা সুখবর হচ্ছে, আমাদের রেমিট্যান্স প্রবাহ ইমপ্রুভ করেছে। মাঝে একটু কমলেও গত দুই দিনে ভালো এসেছে। এই হাওয়াটা যদি থাকে তবে ভালো হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আইএমএফ থেকে যে টাকা নেওয়া হচ্ছে সেটা বাজেট সহায়তা। বিদেশি টাকা যেভাবে আসুক, সেটা আমাদের তহবিলেই যায়। সব টাকা আমাদের ফান্ডে যেতেই হবে, এটা সাংবিধানিক নিয়ম। ওই টাকা ডান পাশে রাখছি না বাম পাশে রাখছি, সেটা টেকনিক্যাল ব্যাপার। তবে আইএমএফের এই ঋণ প্রজেক্ট ঋণ নয়। এটা হচ্ছে ওপেন ঋণ। তারা নগদ টাকা আমাদের দেবে, যেখানে প্রয়োজন সেখানে খরচ করব আমরা। কোন গণতান্ত্রিক সরকার বাজেটের বাইরে ব্যয় করতে পারে না। সুতরাং এই টাকাও বাজেটের বাইরে খরচ হওয়ার সুযোগ নেই।

আমরা জানি আইএমএফের একটা প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে এসেছে এবং এখনও আছে। তারা শর্ত দিয়েছে, সেগুলো কী জানাবেন, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মান্নান বলেন, এই আলোচনার বিষয়ে আমি জানি তবে সেখানে ছিলাম না। এটা আমার দরকার হয়নি। কারণ এটা তাদের কাজ। অর্থমন্ত্রী কথা বলেছেন, এটা এখন ওপেন। শর্তগুলো আমি কাগজ না পেলে বলতে পারব না এবং বলা ঠিক হবে না। আপনারা অর্থ মন্ত্রণালয় যোগাযোগ করলে এটা অবশ্যই পাবেন।

গোলটেবিল বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. মো. হাবিবুর রহমান, বিশ্ব ব্যাংকের অপারেশন ম্যানেজার ডানডান চি প্রমুখ।

আরও খবর: