আন্তর্জাতিক

গণপদত্যাগের পর নতুন মন্ত্রিসভা পেল শ্রীলঙ্কা

  জাগোকণ্ঠ ডেস্ক ১৮ এপ্রিল ২০২২ , ২:১৮ অপরাহ্ণ

ছবি: সংগৃহীত

মন্ত্রিসভার সকল সদস্যের একযোগে পদত্যাগের পর দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কায় নতুন মন্ত্রিসভার নিয়োগ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকশে। আগের মন্ত্রিসভার একমাত্র সদস্য হিসেবে কেবল প্রেসিডেন্টের ভাই ও লঙ্কান প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজপাকসে নতুন মন্ত্রিসভায় স্থান ধরে রেখেছেন।

অর্থাৎ ভাই মাহিন্দা রাজপাকসেকে রেখেই মন্ত্রিসভায় ১৭ জন নতুন সদস্যকে নিয়োগ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া। দেশজুড়ে তীব্র অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে সোমবার (১৮ এপ্রিল) মন্ত্রিসভার নতুন সদস্যরা শপথগ্রহণ করেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ সংস্থা পিটিআই।

বার্তা সংস্থাটির দাবি, চলতি মাসের শুরুর দিকে প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকশে ও তার বড়ভাই মাহিন্দা রাজপাকসে ছাড়া শ্রীলঙ্কার মন্ত্রিসভার বাকি সব সদস্য গণপদত্যাগ করেন। মূলত জরুরি অবস্থা এবং কারফিউ অমান্য করে দেশব্যাপী হাজার হাজার মানুষ সড়কে নেমে বিক্ষোভ শুরু করলে মন্ত্রিসভার সদস্যরা পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন।

আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলো বলছে, শ্রীলঙ্কায় নতুন সরকার গঠনের জন্য বিরোধীদের সহযোগিতাও চেয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকশে। যদিও বিরোধীপক্ষ সেই প্রস্তাব এরই মধ্যে প্রত্যাখ্যান করেছে। এমন অবস্থাতে নিজ দলের প্রতিনিধিদের দিয়েই নতুন মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন তিনি। সোমবার নতুন মন্ত্রিসভার ১৭ জন মন্ত্রী শপথগ্রহণ করেছেন।

যার অর্থ হচ্ছে- পরিবারের সবচেয়ে বয়স্ক সদস্য চামাল রাজাপাকসে এবং মাহিন্দার পুত্র নমাল রাজাপাকসে মন্ত্রিসভায় ঠাই পাননি। এতদিন তারা উভয়েই ক্যাবিনেট মন্ত্রীর পদে ছিলেন। এছাড়া আগের মন্ত্রিসভায় প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বপালন করা ভাতিজা শশেন্দ্রও নতুন মন্ত্রিসভায় ঢুকতে পারেননি।

উল্লেখ্য, ১৯৪৮ সালে ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীনতা অর্জন করে দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা। মূলত এরপর থেকেই একের পর এক সমস্যায় জর্জরিত হতে শুরু করে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্রটি। যদিও বর্তমানে আর্থিক সংকট দেশজুড়ে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। মূলত এই সংকট থেকে আদৌ দেশকে পুনরুদ্ধার করা সম্ভব কি-না, তা নিয়েই বর্তমানে সন্দিহান আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরাও।