1. mdmobinali112@gmail.com : admin2020 :
  2. mdalimobin112@gmail.com : Ali Mobin : Ali Mobin
মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বিএনপি এখন গুজব নির্ভর রাজনীতির চর্চা করছে: কাদের আগের রেকর্ড ভেঙে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড গড়ল বাংলাদেশ গ্রাম মুখি মানুষের ভীর ঘাটে ঘাটে ১’শ টাকার ভাড়া ৪’শ তবুও হয়রানি সাংবাদিকদের লকডাউনে ‘মুভমেন্ট পাস’ নিতে হবে না : আইজিপি মাহে রমজান উপলক্ষে এক হাজার অসহায় পরিবারকে ইফতার সামগ্রী বিতরন করলেন; আ: লতিফ হাঐকার ফরিদপুরের ভাঙ্গায় দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী কীভাবে নেবেন ‘মুভমেন্ট পাস’ জেনে নিন লকডাউনে কর্মহীন পরিবার পাবে নগদ ৫০০ টাকা ও খাবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল : চিকিৎসক

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, নৃশংস এক সহিংসতা! |জাগোকণ্ঠ

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২০ আগস্ট, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা:
বাংলাদেশের ইতিহাসে এখন পর্যন্ত নৃশংস সহিংসতার যেসব ঘটনা ঘটেছে, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনা তার মধ্যে অন্যতম। ২০০৪ সালের এদিনে ঢাকার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশে জড়ো হয়েছিলেন সিনিয়র নেতারা। দলটির প্রধান এবং তখনকার বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনা ছিলেন ওই সমাবেশের প্রধান অতিথি। আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে রাস্তায় একটি ট্রাকে অস্থায়ী মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল।

শেখ হাসিনার বক্তব্য শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দফায়-দফায় বিস্ফোরণের শব্দে পুরো এলাকা কেঁপে ওঠে। সমাবেশে উপস্থিত আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা প্রথমে বুঝতে পারেননি যে এটি ছিল গ্রেনেড হামলা। অনেকেই ভেবেছিলেন বোমা হামলা। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা ঘটনার ভয়াবহতা সম্পর্কে আঁচ করেছিলেন। যখন গ্রেনেড হামলা শুরু হয়, তখন মঞ্চে বসা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা শেখ হাসিনার চারপাশে ঘিরে মানবঢাল তৈরি করেন, যাতে তার গায়ে কোনো আঘাত না লাগে।

যেসব নেতা শেখ হাসিনাকে ঘিরে মানবঢাল তৈরি করেছিলেন, তাদের মধ্যে ছিলেন ঢাকার সাবেক মেয়র মোহাম্মদ হানিফ। তখন হানিফের মাথায় গ্রেনেডের আঘাত লেগেছিল। পরে ২০০৬ সালের শেষের দিকে তিনি মারা যান। গ্রেনেড হামলায় আহত হয়েছিলেন আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভি রহমান, যিনি পরে মারা যান।

ওই গ্রেনেড হামলায় ২৪ জন নিহত হন। এতে আহত হন আরও অনেকে। গ্রেনেড হামলায় আহত অনেকেই এখনও শরীরে আঘাত ও স্প্লিনটার নিয়ে বেঁচে আছেন।

ইতিহাসের এই নৃশংস গ্রেনেড হামলায় নিহতরা হলেন- সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী ও আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক আইভী রহমান, তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত নিরাপত্তাকর্মী ল্যান্স কর্পোরাল (অব.) মাহবুবুর রশীদ, আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামী লীগ কর্মী রেজিনা বেগম, নাসির উদ্দিন সরদার, আতিক সরকার, আবদুল কুদ্দুস পাটোয়ারী, আমিনুল ইসলাম, মোয়াজ্জেম, বেলাল হোসেন, মামুন মৃধা, রতন শিকদার, লিটন মুনশী, হাসিনা মমতাজ রিনা, সুফিয়া বেগম, রফিকুল ইসলাম (আদা চাচা), মোশতাক আহমেদ সেন্টু, আবুল কাশেম, জাহেদ আলী, মোমেন আলী, এম শামসুদ্দিন এবং ইসাহাক মিয়া। বাকি একজনের পরিচয় এখনও জানা যায়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..