দেশজুড়ে

শ্রীনগরে কাঁঠাল পাড়াকে কেন্দ্র করে মারপিটে শিশুসহ আহত-৬

  জাগোকন্ঠ ২৬ জুন ২০২২ , ৩:৫০ অপরাহ্ণ

শ্রীনগর(মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ


মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে কাঁঠাল পাড়াকে কেন্দ্র করে মারপিটে শিশুসহ ৬ জন আহত হয়েছে। গত শুক্রবার(২৪ জুন) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের কামারগাঁও মোল্লাবাড়ী এলাকায় এ মারপিটের ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা আহত জাহাঙ্গীর মোল্লা (৪৫), আলম মোল্লা(২৯), হ্যাপি বেগম (৩০), আখিঁ বেগম (২৪), দোলন বেগম বেগম (২০) ও শিশু জিনিয়া (৪) কে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে ভর্তি করেন। এব্যাপারে আহত জাহাঙ্গীর মোল্লার পিতা বাদী রাব্বি (২০) সহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

আহত জাহাঙ্গীর মোল্লার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, তাদের বাড়ীর দক্ষিন পাশে উকিলা নামে একজন থেকে ৬শতাংশ জমি বায়না নামা রেজিস্ট্রি মুলে ক্রয় করে কাঠালগাছ রোপন করে। শুক্রবার আটরশি পীরের বাড়ী থেকে ফিরে এসে দেখতে পায় কে যেন গাছের কাঠাল পেরে নিয়ে গেছে। এই নিয়ে জাহাঙ্গীরের মা জাহানারা বেগম কাঠাল কে পেরেছে জানতে চাইলে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিবেশী মৃত মজিদের মেয়ে মাহমুদা, মানসুরা, তাদের ভাগিনা উত্তর কামারগাঁওয়ের জহির মোড়লের ছেলে রাব্বি (২১), রাফি (২০), মানসুরার স্বামী অমিত (২৯), জহির মোড়ল (৪৫) সহ আরো অজ্ঞাত নামা ১০/১২ জন হাতে দা, লাঠি লোহার রড ইত্যাদি নিয়ে জাহাঙ্গীরদের বাড়ীতে প্রবেশ করে জাহাঙ্গীরসহ তার শিশু মেয়ে জিনিয়া (৪), স্ত্রী হ্যাপি, ভাই আলম, ভাইয়ের স্ত্রী আখিঁ, দোলন বেগমদেরকে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে গুরুত্বর জখম করে। রাব্বি লোহার রড দিয়ে জাহাঙ্গীরের মাথায় বারি মেরে গুরুত্বর ফাটা রক্তাক্ত জখম করে এবং বসত ঘর ভাংচুর করে ঘরে থাকা নগদ দেড় লক্ষ টাকাসহ আহত দোলনের গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন মোবাইল সেট নিয়ে যায়। ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে খুন জখমের হুমকি দিয়ে চলে যায়। পরে স্থানীয় জখমীদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে ভর্তি করে।

সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য শহরবানু মারপিটের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওরা অন্যায় ভাবে লোক ভাড়া করে এনে জাহাঙ্গীর পরিবারের উপর হামলা করে তাদেরকে আহত করেছে।

শ্রীনগর থানার ডিউটি অফিসার উপ-পুলিশ পরিদর্শক(এসআই) মাসুদ মোল্লা বলেন, অভিযোগ করে থাকলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন কর হবে।

আরও খবর: