1. mdmobinali112@gmail.com : admin2020 :
  2. mdalimobin112@gmail.com : Ali Mobin : Ali Mobin
শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৪১ পূর্বাহ্ন

শরীয়তপুরের জাজিরায় সেই অবৈধ ড্রেজারে মাটি কাটা বন্ধ হয়নি, এখনও ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন |জাগোকণ্ঠ

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২০ জুন, ২০২০

জাজিরা প্রতিনিধি:

শরীয়তপুরের জাজিরায় সেই অবৈধ ড্রেজারে মাটি কাটা বন্ধ হয়নি এখনও ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন। স্থানীয় বড়কান্দি ইউনিয়নের আকন কান্দি গ্রামের প্রভাবশালী টিটু আকন ড্রেজার মেশিনে এখনও মাটি কাটছেন। বিষয়টি প্রশাসনে নজরে দিলেও এখনও ব্যবস্থা নেয়নি তারা। ভূমি অফিস থেকে লোকজন স্পটে গিয়ে ড্রেজার বন্ধ করতে বলা হলেও তা মানছেন না টিটু আকন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা, দিনের পর দিন এভাবে মাটি কেটে ইউনিয়নকে পুকুরে পরিণত করছে বলেও তারা জানান।

এব্যাপারে জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আপনারা থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। একটি কপি আমাকে দিন। আমি ম্যাজিস্ট্রেট পাঠিয়ে ব্যবস্থা নিব।’

এ ব্যাপারে উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা রেনু দাস বলেন, আমার প্রতিনিধিরা ওখানে গিয়েছিলো। টিটু আকন ড্রেজারটি বন্ধ রেখেছে বলেছে। টিটু আকন ডেজার মেশিন আর চালাবেনা বলেছে। এখন আমি নিজে গিয়ে দেখবো। জাজিরা থানা অফিসার ইনচার্জ আজহারুল ইসলাম সরকার পিপিএম বলেন, এটা জেলা প্রশাসকের কাজ। আমাদের নিকট যদি সহযোগিতা চায় আমরা পুলিশ ফোর্স দিয়ে সহযোগিতা করবো।

উল্লেখ্য, শরীয়তপুরের জাজিরায় অবৈধ ড্রেজার মেশিনে মাটির কাটার কারণে ভূমি ধসের আশংকা করেছেন এলাকাবাসী। জেলার বড়কান্দি ইউনিয়নের আকন কান্দি গ্রামে অবৈধ ড্রেজার মেশিনে দীর্ঘদিন যাবত মাটি কাটছে টিটু আকন নামের এক অসাধু ব্যক্তি। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। স্থানীয় ধলু আকনের ছেলে টিটু আকন অবৈধ এ ব্যবসা তিন বছর যাবত করে আসছে বলে সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে কয়েকজন এলাকাবাসী জাগোকণ্ঠকে বলেন, ‘টিটু আকন আগে ঢাকায় থাকতো। এখন তিনি দেশে এসে ড্রেজারের মাধ্যমে মাটির ব্যবসা করছে। আগে টিটু বিদেশে লোক পাঠাইতো। বিদেশে লোক পাঠাইয়া অনেক টাকা কামাইছে। এখন দেশে এসে যেভাবে মাটি কাটছে তাতে এলাকা পুকুরে পরিণত হচ্ছে। প্রসাশনের সাথে টিটুর গভীর সম্পর্ক রয়েছে।’

তারা আরও বলেন, ‘টিটু আকন মানুষকে লোভে ফেলে জমি ক্রয় করে মাটি কেটে বিক্রি করছে। আমাদের এলাকা এমনিতেই পদ্মার কোলঘেঁষা। প্রতি বছর ভাঙনে এলাকার উপর বেশ প্রভাব পড়ে। এখন যদি এভাবে মাটি কেটে এলাকাকে পুকুর বানায় তাহলে আমরা কোথায় যাবো। আমাদের যাওয়ার আর কোন জায়গা নেই। অতি শীঘ্রই টিটুর এ মাটি কাটা বন্ধ করতে হবে। এটাই প্রশাসনের নিকট আমাদের দাবী।
এ বিষয়ে টিটু আকন বলেন, ড্রেজারের ব্যবসা অবৈধ তা আমি জানি। বোঝেনতো সবাইকে টাকা পয়সা দিয়েই মেশিন চালাতে হয়। আমি আমার নিজের জমির মাটি কাটি। তাতে অন্যের সমস্যা হওয়ার কথা না। আমার মতো আরও অনেকে জাজিরায় ড্রেজার মেশিনে মাটি কাটার ব্যবসা করছে। সবাই প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই ব্যবসা করে।
এ বিষয়ে শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের বলেন, আমি স্থানীয় ইউএনওকে ব্যবস্থা নিতে বলেছি। আপনি তার নিকট থেকে আপডেট জানুন।

এ বিষয়ে জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমি বিষয়টি তদন্তের জন্য ওসিকে (জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ) বলেছি। তিনি তদন্ত রিপোর্ট যা দিবেন সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিবো।
এ বিষয়ে জাজিরা উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা বলেন, এর আগেও টিটু আকনের বিরুদ্ধে ড্রেজার মেশিনে মাটি কাটার অভিযোগ পেয়েছি। ওটা দেখতে আমি আমার প্রতিনিধি পাঠিয়েছিলাম। এখন বন্ধ রেখেছে। তবুও বন্ধ না করলে আমি স্ব-শরীরে গিয়ে ব্যবস্থা নিব।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..