জাতীয়

দ্রুত সেবা নি‌শ্চিত কর‌তে কাজ কর‌ছে ‘পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়’

  জাগোকন্ঠ ২০ জুলাই ২০২২ , ১০:৩৯ পূর্বাহ্ণ

পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ইনোভেশন ও ই-গভর্ন্যান্স কার্যক্রমের মাধ্যমে দ্রুত ও উন্নত সেবা নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে।

মঙ্গলবার (২০ জুলাই) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত ইনোভেশন ও ই-গভর্ন্যান্স কার্যক্রম নিয়ে এক পর্যালোচনা সভায় দেওয়া বক্ত‌ব্যে এ কথা ব‌লেন তি‌নি।

পররাষ্ট্রসচিব মন্ত্রণালয়ে চলমান ইনোভেশন ও ই-গভর্ন্যান্স বিষয়ক কার্যক্রম সংক্রান্ত নেওয়া উদ্যোগ ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরে বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেবা সহজীকরণ, কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি ও স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণে মন্ত্রণালয় ও মিশনে ই-নথি/ডি-নথি চালুকরণ, জিআরপি চালুকরণ, অনলাইনভিত্তিক আর্কাইভ তৈরি এবং ডাটাভিত্তিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ নিশ্চিতকরণের উদ্দেশ্যে নিউরাল নেটওয়ার্ক তৈরির জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, এটুআই ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের সঙ্গে কাজ করছে।

মাসুদ বিন মো‌মেন ব‌লেন, ইউনিফাইড ওয়েবসাইট চালুর ফলে ৮১টি বাংলাদেশ মিশন ও মন্ত্রণালয়ের একইরকম আউটলুকের ওয়েবসাইটে সংশ্লিষ্ট মিশনগুলোর ভিন্ন ভিন্ন তথ্য পাওয়া যাবে।

তিনি বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মাইগভ (MyGov) টিমের সহায়তায় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে মন্ত্রণালয়ের ৩৪টি কনস্যুলার পরিষেবা, ২৮টি অভ্যন্তরীণ পরিষেবা এবং ২০২১-২২ অর্থবছরে বিদেশে ২০টি বাংলাদেশ দূতাবাসে আইবাস++ পদ্ধতি চালু করতে সক্ষম হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার মধ্যে তিনি ইনোভেশন ল্যাব স্থাপন, ট্রেড পোর্টাল তৈরি, দেশি উদ্যোক্তাদের জন্য সংশ্লিষ্ট সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বয়ে প্ল্যাটফর্ম তৈরি, তথ্য বিশ্লেষণে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহারের কথা উল্লেখ করেন।

পররাষ্ট্র সচিব বাংলাদেশের পণ্যের বাজার সম্প্রসারণ, সাম্পদায়িক সম্প্রীতি, মানব পাচার, পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ, শরণার্থী ইস্যু নিয়ে কথা বলেন। তিনি পরিবর্তনশীল বিশ্বের নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ বিশেষ করে ইউক্রেন ক্রাইসিস, এনার্জি সংকট, কোভিড অতিমারি ইত্যাদি মোকাবিলায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সক্রিয় ভূমিকা ও অন্যান্য সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে পার্টনারশিপের অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন।

পররাষ্ট্র সচিব মন্ত্রণালয়ের তরুণ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সক্ষমতায় ও দক্ষতায় বিশ্বের কোনো দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পিছিয়ে থাকার কারণ নেই। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের জ্ঞান, প্রজ্ঞা, দেশপ্রেম, কর্মস্পৃহা ও ত্যাগই ভবিষ্যৎ বাংলাদেশের স্বরূপ নির্ধারণ করবে। সভায় মন্ত্রণালয়ের নবীন কূটনীতিকদের বিশেষ করে সিনিয়র সহকারী সচিব ও সহকারী সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ ও মতামত বিনিময় করেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (আন্তর্জাতিক বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও প্রযুক্তি) ড. সৈয়দ মুনতাসির মামুনের সঞ্চালনায় সভায় মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডি এম সালাহ উদ্দিন মাহমুদ, মহাপরিচালক (সাধারণ সেবা) মোহাম্মদ হজরত আলী খান ও অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর: