1. mdmobinali112@gmail.com : admin2020 :
  2. mdalimobin112@gmail.com : Ali Mobin : Ali Mobin
রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন

চরফ্যাসনে দিনমুজুরের ঘর থেকে ৪০ বস্তা সরকারী চাল উদ্ধার ।জাগোকণ্ঠ

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২০

নোমান সিকদার,( ভোলা)চরফ্যাসন,প্রতিনিধি:

চরফ্যাসনের শশীভূষণ থানার রসুলপুর ইউনিয়নের দিনমুজুরের ঘর
থেকে সরকারী জিআরের বরাদ্ধকৃত ৪০ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়েছে।
রসুলপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের শশীভূষণ বাজারের মুদি
দোকানদার ইসমাইল বিক্রির উদ্দেশ্যে ৪০ বস্তা সরকার দিনমুজুর
সেলিমের বসত মজুত করেছেন এমন খবর স্থানীয়দের মধ্যে ছড়িয়ে
পরলে স্থানীয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে খবর দেয়।
বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রুহুল আমিন
অভিযান চালিয়ে ৪০ বস্তা (১২৬৮কেজি) সরকারী জিআররের চাল
উদ্ধার করে চাল গুলো জব্দ করেন। উদ্ধার অভিযানের সময় দিন মজুর
বাড়িতে ছিলেন না। তার স্ত্রী একাই ঘরে ছিলেন। স্থানীয় রেশন
কার্ড ডিলার ও চেয়ারম্যানরা অভিযোগ করেন, খাদ্য গুধাম
কর্মকর্তা কমল গোপাল দে ডিলারদের চাল গুধাম থেকে ওজনে কম
দিয়ে স্থানীয় চোরাকারবারী শশীভুষণ বাজারের মুদি ব্যবসায়ী
ইসমাইলের সাথে আতত করে কালোবাজারে বিক্রির জন্য উদ্ধারকৃত
ওই চাল দিনমুজুর সেলিমের বাড়িতে মজুত করে রেখেছেন।
ইতিপুর্বে এভাবেই শশীভুষণ খাদ্য গুধাম কর্মকর্তা চাল
চোরাকারবারীদের সাথে মিলে নিয়মিত চাল কালোবাজারে বিক্রি
করে আসছিলেন। যদিও খাদ্য গুধাম কর্মকর্তা কমল গোপাল দে দাবী
করেন, ওই চাল জিন্নাগড় ইউনিয়নের শ্রী শ্রী রাধে কৃষ্ণ
মন্দিরের জন্য বরাদ্ধ করা হয়েছে।ওই মন্দির কমিটি ডিওর মাধ্যেমে
স্থানীয় বাবলু নামের একজনের কাছে ওই চাল বিক্রি করেছেন। ওই
চাল দিনমুজুরের ঘরে কি ভাবে গেলে সে প্রশ্নের উত্তর তিনি
দিতে পারেননি।শ্রী শ্রী রাধে কৃষ্ণ মন্দির কমিটির সাধারন
সম্পাদক গুপিনাথ ধুপী জানান, তার মন্দিরের বরদ্ধকৃত চাল তিনি
বাবলুর কাছে বিক্রি করেননি। বাবুল এবং ইসমাইল নামের
কাউকেই আমি চিনিনা। তিনি উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তার

অফিসের নিরাপত্তা প্রহরী মো. সাজ্জাদের মাধ্যমে ত্রিশ হাজার
টাকায় বিক্রি করেছি।
দিনমুজুর সেলিমের স্ত্রী নাজমা জানান, বৃহস্পতিবার বিকালে
প্রতিবেশি ইসমাইল ৪০ বস্তা চাল নিয়ে তার বাড়িতে আসেন।
রাতে নিয়ে যাবেন বলে চাল গুলো তার ঘরে রাখেন। কোথায় থেকে চাল
নিয়ে আসছে সেটা তিনি জানেনা।
অভিযুক্ত ইসমাইল ভ্রাম্যামান আদালতের অভিযানের খবর পেয়েই
তিনি গা ঢাকা দেন। তার মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য
জানাযায়নি।
রেশন কার্ড ও চেয়ারম্যানদের অভিযোগ প্রসঙ্গে শশীভুষণ খাদ্য
গুধাম কর্মকর্তা কমল গোপাল দে বলেন, তাদের অভিযোগটি সঠিক
নয়। সেলাই করা বস্তা চালই তাদেরকে দেয়া হয়। চাল কম হওয়ার কথা
নয়।
চরফ্যাসন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো, রুহুল আমিন জানান,
দিনমজুরের বাড়ি থেকে ৪০ বস্তা চাল উদ্ধার করে জব্দ করা হয়েছে।
উদ্ধারকৃত চাল গুলোর কারন জানার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা
হয়েছে। তদন্ত শেষে মুলরহস্য জানা যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..