দেশজুড়ে

খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে বিবির বাজার স্থলবন্দর

  জাগো কণ্ঠ ডেস্ক ১৬ নভেম্বর ২০২২ , ৪:৪৭ পূর্বাহ্ণ

উদ্বোধনের দীর্ঘ সময় পার হলেও বেহাল দশা থেকে বের হতে পারেনি কুমিল্লার বিবির বাজার স্থলবন্দর। রাজধানীর  সবচেয়ে কাছের এই স্থলবন্দরটি ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও পণ্য আমদানি ও রপ্তানিতে মাইলফলক স্পর্শ করতে পারছে না।

সরেজমিনে দেখা গেছে, এই বন্দর দিয়ে সামান্য কিছু নির্মাণ সামগ্রী রপ্তানি করা হলেও আমদানি একেবারে নেই বললেই চলে। মৌসুমি কিছু ফল যেমন বেল, তেঁতুল এবং মশলা জাতীয় পণ্যের মধ্যে শুধু জিরা আমদানি হচ্ছে। যার রাজস্ব খুবই সামান্য। ফলে উন্নতমানের অনেক পণ্য চোরাই পথে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে দেশে আমদানি করছে বেশ কিছু চক্র।

এই স্থলবন্দরের অপর প্রান্তে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য। অন্য রাজ্যের মতো এটি ধনী না হওয়ায় এখান থেকে আমদানিযোগ্য তেমন পণ্য উৎপাদিত হয় না। ফলে অন্যান্য রাজ্যের উৎপাদিত পণ্য এই স্থলবন্দর দিয়ে রপ্তানি করতে আগ্রহী নয় ভারতের রপ্তানিকারক। ফলে এই স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশের আমদানি খুবই নাজুক। যদিও ত্রিপুরার আশপাশের ৭টি অঙ্গরাজ্যে বাণিজ্যের সুযোগ রয়েছে এই বন্দর দিয়ে।

জানা গেছে, করোনার আগে প্রচুর গম এবং বাঁশ আমদানি করা হলেও করোনার সময়ে বন্ধ হওয়ায় তা এখনও চালু হয়নি। বর্তমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে অর্থনীতির ওপর প্রভাব পড়ায় বন্ধ রয়েছে গম এবং বাঁশ আমদানি। গুটি কয়েক পণ্য আমদানি হয় ভারত থেকে।

বিবির বাজার স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফের সভাপতি জামাল আহম্মদ বলেন, সম্ভাবনাময় এই স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে মাত্র ২৪টি পণ্য আমাদনি করার অনুমতি থাকলেও রপ্তানির ক্ষেত্রে উন্মুক্ত রাখা হয়েছে সকল পণ্য। কিন্তু জটিলতার কারণে শুধুমাত্র গৃহনির্মাণ সামগ্রী ছাড়া তেমন কোনো পণ্য রপ্তানি করা হয় না। আগে গম আমদানি করা হলেও এখন তা বন্ধ রয়েছে। আমদানি পণ্যের মধ্যে বিভিন্ন মৌসুমি ফল, আদা, জিরা, আগরবাতি আমদানি করা হয় বাংলাদেশে।

তিনি আরও বলেন, এই বন্দর দিয়ে প্রতি মাসে গড়ে ৬-৮ হাজার টন পণ্য আমদানি এবং রপ্তানি করা হতো। কোভিড শুরু হওয়ার পর থেকে বন্ধ হয়ে যায়। বছর দুয়েক পর পুনরায় আমদানি-রপ্তানি চালু হলেও তাতে ভাটা পড়েছে। মৌসুমি ফল বেল এবং তেঁতুল আমদানি বেশি হচ্ছে বন্দর দিয়ে। রপ্তানির মধ্যে সিমেন্ট বেশি হচ্ছে। এছাড়া রড, ঢেউটিন, ধান মাড়াইয়ের মেশিন, এলপি গ্যাস ইত্যাদি পণ্য রপ্তানি হলেও তাতে সন্তুষ্ট নয় বন্দর কর্তৃপক্ষ।

বিবির বাজার স্থলবন্দর সূত্র মতে, সিমেন্ট, কয়লা, ঢেউটিন, সিমেন্ট শিট, গুঁড়া পাথর, পিভিসি কম্পাউন্ড, প্লাস্টিকের দরজা, ইট ভাঙার মেশিন, ধান মাড়াই কল ও কোমল পানীয়সহ কেবল ১৫-২০টি পণ্য রপ্তানি হচ্ছে এই বন্দর দিয়ে। দেশের বড় ব্যবসায়ীরা এগিয়ে এলে বন্দরটি চাঙা হবে বলে মনে করছে কর্তৃপক্ষ। এক্ষেত্রে ভারত সরকারেরও সহযোগিতা প্রয়োজন বলে মনে করেন তারা।

বিবির বাজার স্থলবন্দর ইনচার্জ ফারজানা ইয়াসমিন বলেন, করোনার সময়ে বাণিজ্যের হারানো যৌবন আর ফিরে আসেনি। বর্তমানে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি অবনতির ফলে বিবির বাজার স্থলবন্দরেরও পণ্য আমদানি এবং রপ্তানি অনেক কম।

আরও খবর: