বিনোদন

ঐন্দ্রিলার ২৪ বছরের এক লড়াকু জীবন

  জাগো কণ্ঠ ডেস্ক ২০ নভেম্বর ২০২২ , ১:০০ অপরাহ্ণ

টানা ২০ দিনের প্রাণপণ লড়াই। অবশেষে মৃত্যুর কাছে হেরে গেলেন ঐন্দ্রিলা শর্মা। বয়স চব্বিশেই থেমে গেল জীবন ঘড়ি। আপনি যদি এতটুকুতেই দাঁড়ি টানেন তবে দরজার ওপাশের লড়াকু এক যোদ্ধাকে মিস করবেন। এতটুকুন জীবনেই রেখে গেলেন আমৃত্যু লড়াইয়ের এক অনুপ্রেরণা।

২০২২ সালের ১ নভেম্বর থেকে তার এই লড়াই সকলকে উৎকণ্ঠায় রেখেছিল ঠিকই, কিন্তু আদতে তার সংগ্রাম শুরু হয়েছিল অনেক আগেই।

২০১৭ সালে ‘ঝুমুর’ ধারাবাহিক দিয়ে অভিনেত্রী হিসেবে ছোট পর্দায় যাত্রা শুরু করেন ঐন্দ্রিলা
২০১৭ সালে ‘ঝুমুর’ ধারাবাহিক দিয়ে অভিনেত্রী হিসেবে ছোট পর্দায় যাত্রা শুরু করেন ঐন্দ্রিলা

তখন চিকিৎসকরা বলেছিলেন, হাতে বেশি দিন নেই। কিন্তু সে কথা ভুল প্রমাণিত করে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে যান তিনি। দেড় বছর চিকিৎসা চলার পরে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন ঐন্দ্রিলা।

২০২১ সাল। ফেব্রুয়ারি মাসে আবার অসুস্থ। কাঁধে যন্ত্রণা শুরু হয়। জানা যায়, ডান দিকের ফুসফুসে টিউমার তৈরি হয়েছে। আবার শুরু হয় কেমো। অস্ত্রোপচার নিয়ে ঝুঁকি ছিল। তারপরেও অভিনেত্রী সিদ্ধান্ত নেন অস্ত্রোপচারের। চলে জটিল অস্ত্রোপচার! আবারও সেই যুদ্ধে জয়ী হন তিনি।

প্রথম কেমোথেরাপির সময় ছবিটি পোস্ট করেন ঐন্দ্রিলা
প্রথম কেমোথেরাপির সময় ছবিটি পোস্ট করেন ঐন্দ্রিলা

এরপর থেকে খানিক সুস্থ ছিলেন বটে। কিন্তু ১ নভেম্বর স্ট্রোকে আক্রান্ত হন তিনি। চলে যান কোমায়। সেই অবস্থাতেই কাটে ২০টি দিন। মাঝে ‘গ্লাসগো কোমা স্কেল’-এ ঐন্দ্রিলার চেতনার মাত্রা ৫-এর নিচে চলে যায়। দেখা যায় মেটাস্ট্যাটিক ইউয়িংস সারকোমাতে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি।

এই রোগ থেকে বাঁচা খুবই কঠিন। তবুও লড়াই চালান ঐন্দ্রিলা। চিকিৎসকদের পাশাপাশি বাড়ির লোকজনের চলতে থাকে লড়াই। কখনও কখনও আশার আলো দেখা দেয়। অস্ত্রোপচারের ১০ দিনের মাথায় ফের মাথার বাঁদিকে স্ট্রোক হয় তার।

ছায়াসঙ্গী সব্যসাচীর পাশে হাসপাতালের বেডে ঐন্দ্রিলা
ছায়াসঙ্গী সব্যসাচীর পাশে হাসপাতালের বেডে ঐন্দ্রিলা

ভেন্টিলেশনের মাত্রা বাড়ানো হয়। তারপরেই খবর আসতে থাকে হৃদরোগের। শনিবার রাতে ফের দফায় দফায় কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয় ঐন্দ্রিলার। ২০ তারিখ দুপুর ১২ টা ৫৯-এ সব শেষ। প্রয়াত হন অভিনেত্রী। শেষ হয়ে যায় সব লড়াই।

অভিনেত্রীর প্রয়াণে শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। ঐন্দ্রিলাকে ‘ফাইটার’ বলেছেন তিনি। শোকবার্তায় কুর্নিশ জানিয়ে লিখেছেন, ‘প্রতিশ্রুতিময়ী তরুণী এই অভিনেত্রীর বয়স হয়েছিল মাত্র ২৪ বছর।’ মমতা আরও লিখেছেন, “পশ্চিমবঙ্গ সরকার তাকে এ বছর ‘অসাধারণ প্রত্যাবর্তন’ বিভাগে টেলিসম্মান অ্যাওয়ার্ড প্রদান করেছে।” আরও যোগ করলেন, ‘ঐন্দ্রিলা মারণরোগের বিরুদ্ধে যেভাবে লড়াই করেছেন, তা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।’

আরও খবর: