1. mdmobinali112@gmail.com : admin2020 :
  2. mdalimobin112@gmail.com : Ali Mobin : Ali Mobin
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মেডিকেলে চান্স পেয়েও ভর্তি এবং পড়াশুনা চালানো অনিশ্চিত রাবেয়ার,দায়িত্ব নিলেন উপমন্ত্রী বগুড়া মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেল দরিদ্র চায়ের দোকানদারের ছেলে কিরন! স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন আলী’র উপর সন্ত্রাসী হামলা! দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা চাইলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৭৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫৮১৯ গাইবান্ধায় ছুরিকাঘাতে সাবেক সেনা সদস্য নিহত ফেনীতে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ছুঁই ছুঁই বরেণ্য রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী মিতা হক মারা গেছেন খ্যাতিমান লালনশিল্পী ফরিদা পারভীন করোনায় আক্রান্ত স্বনামধন্য গায়ক তপন চৌধুরী প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত

আমতলীতে বীর মুক্তিযোদ্ধার সাথে অসৌজন্যমুলক আচরণের ঘটনায় একাডেমিক সুপার ভাইজারকে লিগ্যাল নোটিশ।জাগোকণ্ঠ

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০

ফয়সাল বাড়ি (বরগুনা)আমতলী প্রতিনিধি:

বরগুনার আমতলী উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ নুরুল ইসলাম পাশা তালুকদারের সাথে অষৌজন্যমুলক আচরণ. চরম দুর্বব্যহার ও মানুিষক নির্যাতনের অভিযোগ এনে উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার মোঃ সেলিম মাহমুদের বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়েছে। রবিবার মুক্তিযোদ্ধার পক্ষে অ্যাডভোকেট মোঃ তৌহিদুল ইসলাম এ নোটিশ প্রদান করেন। আগামী সাত কার্য দিবসের মধ্যে তাকে ওই লিগ্যাল নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। নইলে তার বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে না মর্মে ওই নোটিশে উল্লেখ করা হয়। একাডেমিক সুপার ভাইজার সেলিম মাহমুদ একজন মাদ্রাসা সুপারের পক্ষ নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধার সাথে এমন অসাধাচরনের ঘটনায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। তারা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও একাডেমিক সুপার ভাইজারের
দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করছেন।

জানাগেছে, উপজেলার পুর্ব পাতাকাটা মেহের আলী (এমএ) দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মোঃ আবদুল হাই ২০১৯ সালে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে জাল-জালিয়াতি করে তিনজন শিক্ষক নিয়োগ দেন। ওই তিনজন শিক্ষক নিয়োগ ও মাদ্রাসার অর্থ, উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতসহ বিভিন্ন অনিয়ম দূর্নীতির ১০ টি অভিযোগ এনে এ বছর ২৪ ফেব্রæয়ারী সুপারের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার দাতা সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ নুরুল ইসলাম পাশা তালুকদার বরগুনা জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ করেন।

বরগুনা জেলা প্রশাসক ওই অভিযোগটি আমলে নিয়ে আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে তদন্তপুর্বক প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।
তৎকালিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন ওই তদন্তভার উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার মোঃ সেলিম মাহমুদকে দায়িত্ব দেন। কিন্তু গত
৭ মাস ধরে অজ্ঞাত কারনে একাডেমিক সুপার ভাইজার মাদ্রাসা সুপারের অনিয়মের তদন্ত না করে লুকিয়ে রাখেন। এ নিয়ে কয়েক দফায় মুক্তিযোদ্ধা
পাশা তালুকদার একাডেমিক সুপার ভাইজারের সরানাপন্ন হন। এতে ক্ষিপ্ত হন তদন্তকারী কর্মকর্তা। পরে তদন্তকারী কর্মকর্তা সুপার ভাইজার তার সাথে
অসৌজন্যমুলক আচরন, চরম দূর্ব্যবহার ও মানষিক নির্যাতন করেন।

গত ১৯ অক্টোবর তদন্তকারী কর্মকর্তা একাডেমিক সুপার ভাইজার মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধার দেয়া অনিয়মের অভিযোগের তদন্তের বিষয়ে নোটিশ প্রদান করেন। ওই নোটিশে তদন্তকারী কর্মকর্তা একাডেমিক সুপার ভাইজার মোঃ সেলিম মাহমুদ মুক্তিযোদ্ধার অভিযোগটি মিথ্যা উল্লেখ করে নোটিশ দেন। এ নোটিশ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা পাশা তালুকদার তদন্তকারী কর্মকর্তার দ্বারস্থ হলে তিনি তার সাথে চরম দুর্ব্যবহার এবং মানষিক নির্যাতন করেন। এদিকে ওই তদন্তে একাডেমিক সুপার ভাইজার সেলিম মাহমুদের গত ২৯ অক্টোরর সরেজমিনে যাওয়ার কথা থাকলেও তিনি যাননি এবং ওই নোটিশটি স্থগিতাদেশ দেয়নি। বৃদ্ধ বীর মুক্তিযোদ্ধা ঘটনাস্থলে গিয়ে ফিরে আসেন। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সাথে অসৌজন্যমুলক আচরণ, চরম দুর্ব্যবহার ও মানষিক নির্যাতন করায় তার পক্ষে অ্যাডভোকেট তৌহিদুল ইসলাম রবিবার আমতলী উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার মোঃ সেলিম মাহমুদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য লিগ্যাল নোটিশ দেন। আগামী ৭ কার্য দিবসের মধ্যে তাকে ওই লিগ্যাল নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

নইলে তার বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে না মর্মে ওই নোটিশে উল্লেখ করেছেন। একাডেমিক সুপার ভাইজার ও
তদন্তকারী কর্মকর্তা সেলিম মাহমুদ একজন মাদ্রাসা সুপারের পক্ষ নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধার সাথে এমন অসাধাচরনের ঘটনায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের
মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। তারা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও একাডেমিক সুপার ভাইজারের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করছেন। মাদ্রাসার দাতা সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম পাশা তালুকদার বলেন, মাদ্রাসা সুপার মাওলানা মোঃ আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে ১০টি অনিয়মের অভিযোগ এনে বরগুনা জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দেই।

ওই অভিযোগ তদন্তকারী কর্মকর্তার সাথে আমি যোগাযোগ করলে আমার সাথে অসৌজন্যমুলক আচরন, চরম দূর্ব্যবহার ও মানষিক নির্যাতন করেছেন।
আমি এ ঘটনার তদন্তপূর্বক বিচার দাবী করছি। তদন্তকারী কর্মকর্তা আমতলী উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার মোঃ সেলিম মাহমুদ লিগ্যাল নোটিশ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বলেন, ভুলবসত মুক্তিযোদ্ধার অভিযোগটি মিথ্যা উল্লেখ করে নোটিশ দেয়া হয়েছে। আমতলী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার অ্যাডভোকেট একে এম সামসুদ্দিন শানু বলেন, বয়োবৃদ্ধ বীর মুক্তিযোদ্ধার সাথে এমন অসাধাচারন নেহায়েত অন্যায়। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং দৃষ্টান্তমুলক
শাস্তি দাবী করছি।
আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। জেনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..